মাসিক বা ঋতুস্রাব

Mar 28, 2019
587 Views

মাসিক বা ঋতুস্রাব শব্দটির সাথে সবাই পরিচিত। ইদানিং সামাজিক মাধ্যম এবং বিজ্ঞানের মাধ্যমে আরও বেশি সুপরিচিত।

আমরা যারা নব্বই দশকের ছেলে-মেয়ে আছি তারা এই মাসিক শব্দটির সাথে প্রাইমারি গন্ডি পার হয়ে হাই স্কুলের গন্ডি পার হবার আগেই পরিচিত হই। কিন্তু তা নোংরা ভাবে। কোন মেয়ের মাসিক হলে আমাদের ছেলেদের কাছে তা অনেক আগ্রহ এবং বিনোদনের বিষয় ছিল।
মেয়েরাও এই বিষয়ে খুব একটা সচেতন ছিল না। তারা এইসব কথা তাদের বান্ধবী বা বড় বোন ছাড়া মা,খালাদের সাথে আলাপ করত না। আর আমাদের মা-খালা তারাও তাদের সন্তানদের বলত না।

আমরা ছেলে-মেয়েরা কখনই ঋতুস্রাব এর সঠিক কারনটা জানতাম না। যার জন্য মজার বিষয় ছিল।

এখন ঋতুস্রাব নিয়ে অনেক সচেতনতা মুলক ক্যাম্পিংয়ের মাধ্যমে মানুষ জানে এটা স্বাভাবিক। স্যানিটারি ন্যাপকিনের বিজ্ঞাপন গুলোর মাধ্যমে জানিয়ে দেয় এটা স্বাভাবিক। বিভিন্ন শালীন অশালীন শব্দ চয়নের লেখালেখি, পোস্টার ইত্যাদির মাধ্যমে জানিয়ে দেয় এটা স্বাভাবিক।

কিন্তু কাউকে জানাতে দেখলাম না, কাউকে বলতে দেখলাম না। তুমি যে মাসিক নিয়ে মজা করছ, তোমার মায়ের নিয়মমাফিক মাসিক হত বলেই তুমি আজ এই পৃথিবীতে। তুমি এই পৃথিবীতে জন্মগ্রহণ করতা না যদি না তোমার মায়ের স্বাভাবিক মাসিক না হত। মেয়েদের মাসিক হওয়াটা বাচ্চা জন্মদানেরই একটি প্রক্রিয়া যা বয়োসন্ধি কাল থেকেই শুরু হয়।

সেই বয়োসন্ধি কাল থেকে তোমার জন্ম দানের জন্য তোমার মা প্রস্তুতি নিচ্ছিল। আর তুমি সেই মাসিক নিয়ে মজা নিচ্ছ যা তোমার মায়েরও হয়েছিল বা হচ্ছে। যদি মাসিক নিয়ে মজা নাও তবে তোমার মা’ও এর মজার সামিল হবে। তাই এরপর থেকে কোন মেয়ের মাসিক নিয়ে মজা নেবার আগে তোমার মায়ের কথাটা চিন্তা করিও।

ছেলেদের বুঝান না এই ভাবে, দেখেন কাজ হয় কি না।

তা না করে, নারী না স্যানিটারি ন্যাপকিন পণ্য হিসাবে উপস্থাপন করেন তা আপনারাই ভালো জানেন। বিশেষ অঙ্গের দিকে ক্যামেরার ফোকাস স্যানিটারি ন্যাপকিন দেখায় কি না জানি না। আসলে আপনারা যা দেখান অন্যরা তা দেখে না।

আর মেয়েরা কখনই বুঝেনা, ছেলেরা তাদের প্রয়োজনেই তাদের পণ্য হিসাবে উপস্থাপন করছে আর মেয়েরা তাদের তাদের স্বাধীনতার স্বাদ খুঁজে ফিরে। একটা স্বাভাবিক প্রক্রিয়ার ব্যাপারে মানুষকে সচেতন করবে কিন্তু সেটাও কি নোংরা ভাবে? এতে কি সচেতন হচ্ছে নাকি বিপরীত হচ্ছে? আপনি ভাবুন !

Author
Md Rakib Hossain

Md Rakib Hossain

Md. Rakib Hossain

  • leave a comment

    Your email address will not be published. Required fields are marked *