#Homosexuality সমকামিতা

Oct 11, 2018
4846 Views

সমকামিতা (ইংরেজি: Homosexuality, হোমোসেক্সুয়ালিটি) বা সমপ্রেম বলতে সমলিঙ্গের ব্যক্তির প্রতি “রোমান্টিক আকর্ষণ, যৌন আকর্ষণ অথবা যৌন আচরণ”কে বোঝায়। যৌন অভিমুখীতা হিসেবে সমকামিতা বলতে বোঝায় মূলত সমলিঙ্গের ব্যক্তির প্রতি “আবেগীয়, রোমান্টিক ও/বা যৌন আকর্ষণের একটি স্থায়ী কাঠামোবিন্যাস”। এই ধরনের সম্পর্কের ভিত্তিতে গড়ে ওঠা ব্যক্তিগত বা সামাজিক পরিচিতি, এই ধরনের আচরণ এবং সমজাতীয় ব্যক্তিদের নিয়ে গঠিত কোনো সম্প্রদায়কেও এই শব্দটি দ্বারা নির্দেশ করা হয়।”(উইকিপিডিয়া)
Homosexuality is romantic attraction, sexual attraction or sexual behavior between members of the same sex or gender. As a sexual orientation, homosexuality is “an enduring pattern of emotional, romantic, and/or sexual attractions” to people of the same sex. It “also refers to a person’s sense of identity based on those attractions, related behaviors, and membership in a community of others who share those attractions.”

** সমকামিদের মানসিক স্বাস্থ্য সমস্যাঃ

* মনস্তাত্ত্বিক গবেষণাগুলো সমকামী, উভকামী ব্যক্তির মানসিক স্বাস্থ্য নিয়ে পরীক্ষণ করেছে। গবেষকরা সমকামী ব্যক্তির হতাশা, মানসিক উদ্বেগ কেমন হয়, তা নিয়ে গবেষণা করেছেন। দেখেছেন এই সমস্ত সমস্যার ফলে তাদের খাদ্যভ্যাসে কোনো প্রভাব পরে কিনা।

* মানসিক ব্যাধি: একটি ডাচ গবেষনা অনুসারে বিষমকামী পুরুষের তুলনায় সমকামী পুরুষে মেজাজ ও উদ্বিগ্নতা বিশৃঙ্ক্ষল থাকে, তারা অস্থিরচিত্ত নয়, ক্ষণে ক্ষণে মানসিক ধী পরিবর্তিত হয়, সমকামী নারীরা বিষমকামী নারীর তুলনায় অনেক বেশি হতাশাপ্রবণ থাকে (অন্যান্য উদ্বিগ্নতায় পার্থক্য তাদের দেখা যায় নি)।

* শারীরিক বাহ্যরুপ ও খাদ্যাভাসে বিশৃঙ্ক্ষলা: সমকামী পুরুষেরা বিষমকামী পুরুষের তুলনায় তাদের শারীরিক শ্রী এর প্রতি বেশি মনোযোগী থাকে; তারা সচেতন থাকে; তাদের দেখে অন্য মানুষরা ইতিবাচক না নেতিবাচক মন্তব্য করছে; তার ব্যাপারে।খাদ্যাভাসে বিশৃঙ্ক্ষলায় সমকামী নারীরা বিষমকামী নারীর তুলনায় কম ঝুঁকির শিকার হয়।

* জৈবিক ভাবে নির্ধারিত লিঙ্গের সমাজ দ্বারা সংজ্ঞায়িত আচরণের বাইরে অন্য আচরণ সংক্রান্ত সমস্যা: সমাজ কর্তৃক জৈবিক লিঙ্গ ব্যক্তিবর্গের মানুষের আচরণ কেমন হবে; তা মোটামুটি নির্ধারিত। যেমনঃ একজন ছেলে বাইরে কাজ করবে, শার্ট প্যান্ট পরবে, হাটার সময় গটগট করে হাটবে, আর নারীরা ঘরে বসে থাকবে, ঐতিহ্যবাহী পোষাক পরবে; হাঁটার সময় ধীরে ধীরে হাটবে, এধরনের আচরণ একটা সমাজ জৈবিক ভাবে নির্ধারিত লিঙ্গের মানুষের কাছে প্রত্যাশা করে। কিন্তু সমকামী পুরুষেরা যখন কিছু মেয়েলী আচরণ জনসম্মুখে করে, তখন তাকে বিভিন্ন সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়। তবে সমকামী নারীদের এই সমস্যার মুখোমুখি কম হতে হয়।

* সংখ্যা লঘুর চাপ: সমকামী ব্যক্তিরা প্রতিটা সমাজেই যৌন সংখ্যালঘু; আর নিজের যৌন প্রবৃত্তি এভাবে কম হওয়ার জন্য তাদের মধ্যে মানসিক উদ্বেগ সবসময় কাজ করে।

* আত্ম-স্বতন্ত্র যৌন অভিমুখিতা: যৌন অভিমুখিতা ও ধর্মীয় পরিচয়ের মধ্যে যদি বিরোধার্থক ভাব থাকে; তবে তা কিছু মানুষকে তীব্র মানসিক পীড়ার মধ্যে ফেলে দেয়। এর ফলে কিছু কিছু মানুষ তার যৌন অভিমুখিতা পরিবর্তন করতে চায়।

* যৌন সম্পর্কের ব্যাধি: সমকামী ব্যক্তিরা যখন বিপরীত লিঙ্গের কাওকে বিবাহ করে (মিশ্রবিবাহ) তখন তারা এই ভেবে দ্বন্দ্বে থাকেন, তাদের বিবাহ হয়তো ভেঙে যাবে।যৌন সম্পর্কের ব্যাধি এমন এক প্রকার ব্যাধি; যেখানে যৌন পরিচয় তার সম্পর্কের গঠনে হস্তক্ষেপ করে।

** সমকামিদের আত্মহত্যার প্রবনতাঃ

বিষমকামীদের তুলনায় সমকামী নারী-পুরুষ অথবা উভকামীদের মধ্যে আত্মহত্যা প্রবণতা অনেক বেশি দেখা যায়।সমকামী ও উভকামী পুরুষের তুলনায় উভকামী ও সমকামী নারীদের মধ্যে আত্মহত্যার উচ্চ প্রবণতা দেখা যায়।

গবেষণাগুলো বিষমকামী ও সমকামীদের আত্মহত্যার প্রবণতার নিখুত পার্থক্য কেমন হতে পারে; তার চুড়ান্ত কোনো ফলাফল প্রদর্শন করতে সক্ষম হয় নি। একটি গবেষণা থেকে দেখা গিয়েছে সমকামী নারীদের বিষমকামীদের তুলনায় ০.৮-১.১ গুণ বেশি ও সমকামী পুরুষের বিষমকামীদের তুলনায় ১.৫-২.৫ গুণ বেশি আত্মহত্যার প্রবণতা দেখা যায়। এধরনের অসংখ্য পারিসংখ্যানিক উপাত্ত থাকলেও, আত্মহত্যার প্রবণতার হার সবচেয়ে বেশি দেখা গিয়েছে এরকম একটি পরিসংখ্যান থেকে দেখা গিয়েছে; সমকামী নারীরা; বিষমকামীদের তুলনায় ৪.৬ গুণ ও সমকামী পুরুষেরা বিষমকামীদের তুলনায় ১৪.৬ গুণ বেশি আত্মহননের পথ বেছে নেয়।

সমকামী নারী পুরুষের মধ্যে যারা আত্মহত্যা করতে চায়; তারা সমকামী বিদ্বেষী বিভিন্ন আচরণের শিকার হয়। দেখা যায়, যারা আত্মহত্যা করে না; তাদের তুলনায় আত্মহত্যা করতে ইচ্ছুক সমকামীরা অধিক বিচ্ছিন্নতা, একাকিত্ব, বৈষম্য ও পরিবার থেকে ত্যাজ্য; এরকম ঘটনার মধ্য দিয়ে যায়। আরেকটি গবেষনা থেকে দেখা গিয়েছে; যেসব সমকামীরা আত্মহননের পথ বেছে নেয়; তারা অধিক হারে (যৌন ক্রিয়ায়) নারীর ভূমিকা পালন করে। যারা অবিষমকামী পরিচয় তরুণ বয়সেই গ্রহণ করে; তাদের মধ্যে অনেকেই যৌন নির্যাতনের, মাদকাসক্তের শিকার হয়; বিভিন্ন আচরণগত কারণে গ্রেফতার হয়।একটি গবেষনা থেকে দেখা গিয়েছে নরওয়ের যেসব কিশোররা আত্মহত্যা করতে যায়; তাদের ক্ষেত্রে সুনির্দিষ্টভাবে বলে দেওয়া যায়; এই কিশোররা সমলিঙ্গে যৌনাচারণ করতে ইচ্ছুক। তবে তারা সমকামী এমনটা বলা যাবে না।

লেখকঃ Yaqub Hasan

Author
Bangladesh Information

Bangladesh Information

"Bangladesh Information" is working on the goal of promoting Bangladesh in the world. Let's fulfill Bangladesh Information's goal, you can also raise the country with the help of the Bangladesh Information.

  • leave a comment

    Your email address will not be published. Required fields are marked *

    * Copy This Password *

    * Type Or Paste Password Here *