জ্যাঁ কুয়ে

Feb 14, 2018
341 Views

জ্যাঁ কুয়ে একজন ২৮ বছর বয়সের একজন ফরাসী বাঙালীপ্রেমী যুবক। যিনি ৩রা ডিসেম্বর ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধে বাংলাদেশিদের ত্রাণ পাঠাতে ফ্রান্স থেকে পাকিস্তান এয়ার ওয়েজের ৭২০বি উড়োজাহাজটি ফ্রান্সের ওর্লি বিমানবন্দর থেকে ছিনতাই করেছিলে বাংলাদেশের যুদ্ধে কবলিত নিপীড়িত মানুষের পাশে দাড়ানোর জন্য।

৩রা ডিসেম্বর ১৯৭১ সাল এই সময় তিনি নির্ধারণ করেন বেশ কৌশলী চিন্তায়। কেননা এদিন এই বিমানবন্দরেই আসবার কথা ছিলো জার্মান চ্যান্সেলর উইলি ব্র্যান্ডিট এবং ফরাসী রাষ্ট্রপতি পম্পিডু’র। তিনি ভেবেছিলেন এই সূত্র ধরে এই দু’জনকে নিয়ে নিরাপত্তারক্ষীরা ব্যস্ত থাকবেন আর এই ফাঁকে তিনি ঢুকে যাবেন তাঁর লক্ষ্যে। পাকিস্তানের পি আই এ’র ৭২০ বি উড়োজাহাজটি ছিনতাই করবার পেছনে তাঁর কারন ও দাবী ছিলো একটাই, সেটা হচ্ছে ভারতীয় শরনার্থী শিবিরে যে লক্ষাধিক বাংলাদেশীরা অমানবিক জীবন-যাপন করছেন পাকিস্তানী হানাদার ও তাদের দোসর দালালদের ভয়ে দেশ ছেড়ে চলে এসে তাঁদেরকে ২০ টন ঔষধ (মেডিকেল ইকুইপমেন্ট এবং সংশ্লিষ্ঠ দ্রব্যাদি) এবং যথাযথ পরিমাণে খাদ্য সরবরাহ করতে হবে।

জ্যাঁ কুয়ে দীর্ঘদিন ধরে পরিকল্পনা করছিলেন এই এত বড় অপারেশনের। বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে যে হতাহতের খবর তিনি জানতে পারছিলেন সংবাদপত্র এবং অন্যান্য মিডিয়ার মাধ্যমে, সে খবরে তাঁর প্রাণ আকুল হয়ে উঠেছিলো বাংলাদেশের জন্য। তিনি জানতেন ধরা পড়লে ও ব্যর্থ হলে কি নিয়তি লেখা আছে তাঁর কপালে। তিনি জানতেন কতটুকু ঝুঁকি নিয়ে এই কাজ করতে যাচ্ছেন। কিন্তু তারপরেও হাজার মাইল দূরের এই ভিনদেশী ফরাসী তরুণ বাংলাদেশের জন্য তাঁর জীবনকে বাজি ধরেছিলেন। এক মানবিকতা আর মানুষ ছাড়া হয়ত আপাতঃদৃষ্টিতে তাঁর কোনো দায়িত্বই ছিলোনা অথচ শুধু মাত্র আমাদের জন্য এই মানুষটি একটি গোটা প্লেন ছিনতাই করেছিলেন। শুধু আমাদের দেশের সেই ভয়াবহ বিপদের মুখে থাকা মানুষের জন্য।

জ্যাঁ কুয়ের কাছে ছিলো একটি রিভলবার আর একটি ভুয়া বোম। তাঁর গায়ে বোম জড়ানো রয়েছে ও হাতে পিস্তল-এ দু’টি নিয়েই তিনি প্লেনের ককপিটে চলে যান এবং পাইলটের মাথায় পিস্তল ধরেন। দাবী তোলেন যে বাংলাদেশের জন্য যথাযথ পরিমাণ ত্রাণ আর মেডিকেল সরঞ্জাম না পাঠানো হলে তিনি এই প্লেনকে উড়িয়ে দেবেন।

তাঁর কথা রাখা হবে এই আশ্বাস দিয়ে রেডক্রসের কিছু কর্মী এবং উড়োজাহাজের টেকনিশিয়ান হিসেবে দুইজন কর্মী প্লেনে ঢুকে পড়ে। কিন্তু তারা ছিলো ছদ্মবেশের পুলিশ। শেষ পর্যন্ত যা হয়, একটা পর্যায়ে গ্রেফতার হলেন জ্যাঁ কুয়ে। মহান বীর। তাঁকে প্রসিকিউট করা হবে, এই মর্মে ঘোষনাও দেওয়া হলো কিন্তু সে সময়কার যত সাক্ষী ছিলেন এবং যারা এই ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী ছিলেন তাঁরা প্রত্যেকেই সাক্ষ্য দিলেন যে জ্যাঁ কুয়ে যা করেছেন তা মানবতার জন্য, মানুষের জন্য। কারো ক্ষতি তিনি আদৌ করতে চাননি, সে উদ্দেশ্য তাঁর ছিলোই না। কিন্তু শেষ রক্ষা তাঁর হয়নি। ফরাঁসী সরকার তাঁকে ৫ বছরের কারাদন্ড দেন। কারাদন্ড পেয়ে বের হবার পরেও জ্যাঁ কুয়ে বসে থাকেন নি। মানবতার জন্য তিনি দৌঁড়েছেন ভারতে, ওয়েস্ট ইন্ডিজে,অস্ট্রেলিয়া সহ সারা বিশ্বে।

আর আপনাদের জানিয়ে রাখি, সে সময় জ্যাঁ কুয়ের এই মহান অভিযানের প্রতি সম্মান রেখে ফঁরাসী রেডক্রস এবং Knights Hospitaller মাল্টা বাংলাদেশকে ২০ টন মেডিকেল সরঞ্জাম ত্রাণ হিসেবে পাঠায়।

বাংলাদেশের নাগরিক হয়ে কিংবা ইসলামের কথা মুখে রেখে দেশের কত যুবক আর তরুণ মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় হয়েছিলো রাজাকার, আল-বদর, আল শামস। সাহায্য করেছিলো পাকিস্তানী হানাদার আর্মিকে। খুন করেছিলো লক্ষ লক্ষ বাংলাদেশী মুক্তিকামী মুক্তিযোদ্ধাদের। অথচ, কত হাজার হাজার মাইল দূরের একজন ফঁরাসী যুবক জ্যাঁ কুঁয়ে বাংলাদেশের জন্য নিজের জীবনে বাজি ধরে ছিনতাই করেছিলেন প্লেন। ৫ বছরের জেল খেটেছিলেন সম্পূর্ণ অচেনা এক দেশের জন্য।

আপনাকে দাঁড়িয়ে অভিবাদন জ্যাঁ কুয়ে। আপনি আমাদের অভিবাদন গ্রহণ করুন।

Author
Bangladesh Information

Bangladesh Information

"Bangladesh Information" is working on the goal of promoting Bangladesh in the world. Let's fulfill Bangladesh Information's goal, you can also raise the country with the help of the Bangladesh Information.

  • leave a comment

    Your email address will not be published. Required fields are marked *